পর্ব- ৬ঃ অন্যের পেপার পড়া এবং তার ড্রাফট রাইটিং

- কি এবং কেন

আপনি যদি ইতোমধ্যে বিভিন্ন ধরনের গবেষণাপত্র পড়া শুরু করে থাকেন, তাহলে রিসার্সের এই জগতে সঠিকভাবে প্রবেশ করে ফেলেছেন। এখন দরকার এই পড়াশোনাকে কিভাবে আমার কাজে লাগানো যায় সেটি। আরেকটি ব্যাপার, আপনার এই পড়াশোনা বা ঘাটাঘাটি করাটা কিছুটা অর্গানাইজড ওয়েতে হওয়া উচিৎ।

মনে করি আপনি এনএলপি ফিল্ড থেকে সেন্টিমেন্ট এনালাইসিস টপিক নিয়ে গবেষনা করছেন এবং গুগল স্কলার থেকে সার্স দিয়ে, সাইহাব ইউজ করে বেশ কিছু পেপারও নামিয়ে ফেলেছেন। এবার পড়ার পালা!

প্রথম দিকে থিসিস পেপার পড়াটা মোটামুটি একটু কঠিন মনে হবে। মনে হতে পারে এগুলো বাংলা, ইংরেজীরও বাইরে অন্য কোনো ভাষায় লেখা। অনেকে আবার অর্গানাইজড ওয়েতে স্টাডি না করার কারনে আরও কঠিন মনে হয়।

রিসার্স পেপারের সকল টার্ম কঠিন মনে হলে পড়ার দরকার নাই। আমি কিছু বিষয় পয়েন্ট আকারে বলছি, এগুলো একটা পেপার থেকে স্কিমিং করলেই মোটামুটি ঐ পেপার সম্পর্কে যা জানার দরকার জানা হয়ে যাবে-

- কি কি ড্রাফট করতে হবে?

  • পেপারের টাইটেল, অথর, কনফারেন্সের নাম এবং সময়কাল

  • এবস্ট্রাক্ট পুরোটা

    • ফাইনাল আউটপুটটা আসলে কি?

    • কিভাবে বা কোন অ্যাপ্রোচে তারা প্রবলেম সলভ করেছে?

    • কাজের একুরেসি কেমন?

  • লিটারেচার রিভিউ থেকে রিলেটেড ওয়ার্কস দেখে নেয়া

  • ডেটাসেট কোনটি ইউজ করেছে, সেটার প্রোপারটিজ (যদি থাকে)

  • কি কি টুলস এবং টেকনিক ইউজ করেছে

    • যদি নতুন কোনো টেকনিক হয়ে থাকে তাহলে সেটার মোটামুটি ধারনা নেয়া

  • তাদের কাজটির মধ্যে নতুনত্ব কি আছে সেটা আইডেন্টিফাই করা

  • কাজটির ফিউচার ওয়ার্কে তারা কি রেখেছে

প্রতিটি পেপারের এই ইনফরমেশনগুলো কালেক্ট করে সেগুলো নিজের মত নোট করে রাখলে সবচেয়ে ভালো হয়, যেটাকে বলেছি ড্রাফট রাইটিং। কেননা এরকম ১০/১৫ টা পেপারের ড্রাফট রাইটিং হলেই আপনি একটা নিজের রিভিউ পেপার তৈরি করতে পারবেন। যেটা গবেষণায় বিগিনার হিসেবে একটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

এছাড়া কোনো পেপার পড়ে তাদের ফিউচার ওয়ার্ক দেখে আপনিই শুরু করে দিতে পারেন তাদের ফিউচার ওয়ার্কের একটা অংশ বা তাদের কাজটিই যদি আপনি আরও এফিসিয়েন্ট উপায়ে করতে পারেন তাহলে সেটিও চেষ্টা করে দেখতে পারেন। আর এভাবেই শুরু করবেন আপনার গবেষনা এবং ইনফরমেশন ড্রাফট রাইটিং এর কাজ।