পর্ব- ১০ঃ শুরুর শেষ

এই হ্যান্ডনোটটি আসলে আপনাদেরকে গবেষনা করতে সাহায্য করবে না, হয়তো গবেষনার শুরুটা সম্পর্কে ভালো একটি ধারনা দিবে। আমার মত অনেকের শুরু করাটাতেই অনেক বেশি সমস্যা হয়ে ওঠে। অনেকে গবেষনা কথাটিকে বিরাট অর্থে নেয়ার কারনে শুরুটাই করতে পারেন না। কিভাবে, কি দিয়ে শুরু করবে, আজ করবে না কাল করবে- নিজেকে এইসকল উত্তর দিতে দিতে মোটিভেশন হারিয়ে ফেলে।

আমি-আপনি হয়তো অনেক বড় বিজ্ঞানি বা গবেষক হতে পারবো না, কিন্তু হতে পারে আমার করা সামান্য কাজটুকুই পরবর্তীতে অন্য কেউ অনেক বড় কিছুতে পরিনত করেছে।

আমি নিজেই গবেষনাধর্মী কাজ এবং থিসিস পেপার পাবলিশের ব্যাপারটাকে খুবই অপারগতার চোখে দেখতাম। ঠিক এমন সময়ে আমার ভুল ধারনাকে ভাঙিয়ে দিয়ে এই ব্যাপারে সঠিক শিক্ষা দিয়েছে আমার কয়েকজন শ্রদ্ধেয় শিক্ষক। এই ব্যাপারে আমি আমার ডিপার্টমেন্ট হেড, Prof. Dr. Syed Akhter Hossain স্যার এবং আমাকে যিনি আমার শুরুটা করে দিয়েছে, সাথে সর্বক্ষন বিভিন্ন ধরনের মতামত, পরামর্শ ও উৎসাহ দিয়ে পাশে থেকেছেন, Sheikh Abujar স্যারের কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ।

আমাদের মত ক্ষুদে গবেষকদের গবেষনাধর্মী কাজ করতে যেমন ভালো কারোর সুপারভিশন লাগে, ঠিক তেমনই লাগে কয়েকজন ডেডিকেটেড টিম মেম্বার। সেদিক দিয়ে আমি একজন ভাগ্যবান যে, Shahariar Rabby এবং Sadia Sultana Sharmin এর মত কাউকে টিম মেম্বার হিসেবে পেয়েছিলাম।

তাই যারা আজ থেকে গবেষনাধর্মী কাজের দিকে মনোনিবেশ করবেন ভাবছেন, তারা যত দ্রুত সম্ভব শুরু করে দিন আর নিজের মত করে কাজ করতে থাকুন।

থিসিস পেপার পাবলিশ সম্পর্কে বলবো, অনেক জায়গা থেকে আপনার কাজ তারা একসেপ্ট করবেনা বলে জানিয়ে দিবে। এতে মোটেও হতাশ হবেন না। একই পেপার আগের জনের রিভিউ অনুযায়ী সম্পাদন করে অন্য কোথাও সাবমিট করুন।

ক্ষুদে গবেষক থেকে ধীরে ধীরে হয়ে উঠুন বড় কেউ। অথবা দেশের জন্য বড় কিছু করুন। ধন্যবাদ..